ফিনালিসিমার আগে শেষ প্রস্তুতিতে মেসিরা

রোমাঞ্চকর এক রাত আজ ফুটবলপ্রেমীদের। আর্জেন্টিনা বনাম ইতালি। রাত পৌনে একটায় লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে শুরু হতে যাওয়া এই ম্যাচের একটা চমৎকার নামও আছে—‘লা ফিনালিসিমা’। ইউরো ও কোপা আমেরিকাজয়ী দুই দলের লড়াই এটি। বহু আগেই এমন ম্যাচ আয়োজনের জন্য লাতিন ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা কনমেবল ও ইউরোপীয় ফুটবলের নিয়ন্ত্রক উয়েফার মধ্যে চুক্তি হয়েছিল। সে ম্যাচই বাস্তবতার আলো দেখছে আজ রাতে। এর মাধ্যমেই ২৯ বছর পর আবারও ফুটবলপ্রেমীরা দেখতে যাচ্ছেন ‘কনমেবল-উয়েফা কাপ অব চ্যাম্পিয়নস’ প্রতিযোগিতার তৃতীয় কিস্তি। এই ম্যাচের আগে ওয়েম্বলিতে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি সেরেছে দুই দলই।

এখন মনে হতে পারে আর্জেন্টিনা এবং ইতালির আজকের ফাইনাল ম্যাচটির মাধ্যমে নতুন একটি টুর্নামেন্টের যাত্রা শুরু হতে যাচ্ছে। আসলে তা নয়। কোপা আমেরিকা এবং ইউরো চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে আগেও ম্যাচ হয়েছিল। ১৯৮৫ এবং ১৯৯৩ সালে হয়েছিল এই টুর্নামেন্ট। প্রথমবার দক্ষিণ আমেরিকা চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়েকে ২-০তে হারিয়ে শিরোপা জেতে ইউরো চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। ১৯৯৩ সালে ইউরো সেরা ডেনমার্ককে টাইব্রেকারে হারিয়ে ট্রফি ঘরে তোলে আর্জেন্টিনা। দিয়েগো ম্যারাডোনা-গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতাদের পর লিওনেল মেসি- ডি মারিয়ার দল এবার কি তৃতীয় আসরের শিরোপা জিততে পারবে। সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে আজ রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। ইংল্যান্ডের লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে রাত পৌনে ১টায় মুখোমুখি হবে সর্বশেষ কোপা এবং ইউরো সেরা দুই দল। আগে এই টুর্নামেন্টের নাম ছিল আরতেমিও ফাচ্চি কাপ। সাবেক উয়েফা সভাপতি এবং ইতালির ফুটবল সংগঠক ছিলেন ফাচ্চি। এর একটি আসর ইউরোপে অপরটি দক্ষিণ আমেরিকায় হবে এটাই ছিল পরিকল্পনা। ২০১৯ সালে এই আসর বাতিল করা হয়। এর বিকল্প হিসেবে ফিফা আয়োজন করছে মহাদেশীয় কনফেডারেন কাপ। এরপরই কনবেমল-উয়েফা কাপ অব চ্যাম্পিয়ন্স চালুর প্রক্রিয়া শুরু। সেই লা ফিনালিসিমাই আজ।
গত বছর কোপা আমেরিকা জেতা আর্জেন্টিনা এখন ভাসছে হাওয়ায়। আজ যদি তারা ইতালিতে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে তাহলে আরেকটি পালক যোগ হবে দুই বারের বিশ্বকাপ জয়ীদের মুকুটে। সাথে কাতার যাওয়ার আগে বাড়তি আত্মবিশ্বাস। অন্য দিকে ইতালির সামনে ৩৫ বছর পর ল্যাতিন প্রতিপক্ষকে হারানোর সুযোগ। সর্বশেষ তারা ১৯৮৭ সালে হারিয়েছিল ম্যারাডোনার দেশকে। ম্যারাডোনার গোল সত্ত্বেও ইতালি ৩-১-এ জিতেছিল। ২০০১ সাল থেকে এখন পর্যন্ত দুই দলের সর্বশেষ তিন সাক্ষাতেই জয় আর্জেন্টিনার। যার সর্বশেষটি ২০১৮ সালে। তিন ম্যাচে ২-১, ২-১ এবং ২-০ ছিল স্কোর লাইন। ৯০ বিশ্বকাপে টাইব্রেকারের জয় ধরলে সে সংখ্যা ৪। তবে বিশ্বকাপের ৫ ম্যাচে আর্জেন্টিনা এখন ৯০ মিনিটের খেলায় জিততে পারেনি ইতালির বিপক্ষে। ১৯৭৪ এবং ১৯৮৬ এর বিশ্বকাপে দুই দলের খেলা ১-১-এ শেষ হয়। ১৯৭৮ ও ১৯৮২-এর বিশ্বকাপে ইতালির জয় ১-০ ও ২-১ গোলে। সেই ইতালি এবারও নেই বিশ্বকাপে। দুই দলের ১৬ ম্যাচের ৬টিতে জয় ইতালির। ৫টিতে আর্জেন্টিনার। বাকি ৫ ম্যাচ ড্র।